Sunday, 30 June 2013

ভাঁড়-holder

অনেক গাড়িতেই cup-holder থাকে। কিন্তু তার একটা মাত্র ব্যাসরেখা (diameter) থাকে। অনেক দেশেই মাটির ভাঁড় (রসালো মিষ্টির ভাঁড়, ঝোল-সহ তরকারির ভাঁড়) খুব ব্যবহার করা হয়। এই মাটির ভাঁড় হাতে নিয়ে হাঁটা বিশেষ মুশকিল নয়। কিন্তু গাড়িতে তা নিয়ে যাওয়া যথেষ্ট মুশকিল, সেই ভাঁড় বেঁকে গিয়ে রস/ ঝোল না ফেলে। তাই গাড়িতে, এবং bicycle, scooter ও motorcycle-এও একটা ব্যাসরেখা বদলানো যায় এমন একটা cup-holder এবং তার নীচে উচ্চতা বদলানো যায় এমন একটা ওজন ধরে রাখার, পাত্র-র তলাটা ট্যাঁক দেওয়ার, জিনিষ থাকলে, এই সমস্যার একটা মোটামুটি সমাধান করা যায়।

Wednesday, 19 June 2013

বারাসাতের ধর্ষণ

    বারাসাতের ধর্ষণ-কাণ্ডের পর কিছু মানুষে জবাব খুঁজছে। জবাব যে কিছু মানুষে খুঁজছে এটা ভালো জিনিষ। রাজনৈতিক নেতারা (প্রজাতান্ত্রিক ভাবে মনোনীত প্রতিনিধিরা), যেরকম পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী, এই ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদীদের বিরোধী দলের সদস্য বলেছেন। অনেক প্রতিবাদকারীরা, এই মন্তব্যের পূর্বেই, সমাজে অপরাধ বেড়ে চলার কারণ শাসক দলের ব্যর্থতা হিসেবে চিহ্নিত করেছে।
    আমার ব্যক্তিগত মতে, সমাজের এই অপরাধের কারণ উপর থেকে জনসাধারণের মধ্যে ছড়িয়ে পরছে, তা নয়। বরং বেশীর ভাগ মানুষই অপরাধী -- ধর্ষণকারী, স্লীলতাহাণীকারী, ঘুষখোর, ইত্যাদি। এবং আমাদের রাজনৈতিক প্রতিনিধিরা সেই সমাজ এর থেকেই মনোনীত হয়েছে, ফলে তারা সেই সব ইচ্ছারই প্রতীক।
    রাজনৈতিক নেতাদের দোষ না দিয়ে সমাজের নিজেদেরকে দোষ দেওয়া উচিত। এক অতি সৎ ব্যক্তি মুখ্যমন্ত্রী হলেও, সে সমাজের উন্নতি করতে অক্ষম হবে যদি সাধারণ মানুষ অপরাধী হয়, যেটা বেশীর ভাগ সাধারণ মানুষই।
    তবে, রাজনৈতিক নেতাদের একটা দায়িত্ব নিশ্চই আছে। এবং আমাদের বর্তমান নেতারা নিজেদের দায়িত্ব ঠিক মতন পালন করতে পারেনি বলে সাধারণ মানুষের তাদের আগামী নির্বাচনে আরেকবার মনোনয়ন করা উচিত নয়। কিন্তু মানুষ কী চায়, তা আগামী নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত জানা যাবে না। এটা বলাও বৃথা যে নির্বাচনে জালিয়াতি হয়। সেই অপরাধেও অংশগ্রহণ করে সাধারণ মানুষ। এবং তাদের যথেষ্ট সম্মতি না থাকলে, এই জালিয়াতি করাও সম্ভব নয়।
    সমাজ হিসেবে, কেবল পশ্চিমবঙ্গ বা ভারত-ই নয়, সমস্ত পৃথিবীতেই অপরাধের পিছনের কারণ এই যে বেশীর ভাগ মানুষই অপরাধী। লেখা বাহুল্য, এই সব মত-ই ব্যক্তিগত, এবং তা সত্য হিসেবে প্রচার করা আমার উদ্দেশ্য নয়।

Friday, 14 June 2013

ইণ্ডিয়ান ওশান

দিল্লির ইণ্ডিয়ান ওশান গানের দল আপাতত দলভঙ্গ হয়েছে। ওরা প্রথমে শুরু হয়েছিল স্রেফ অসীম চক্রবর্ত্তী-র তবলা ও সুস্মিত সেন-এর গীটার নিয়ে। ওদের প্রথম অনুষ্ঠানই ছিল একটি কলেজে। তারপর থেকে প্রায় ২৫ বছর ধরে ওরা প্রধানত ভারতের কলেজেই বাজিয়ে গেছে। তারপর ওদের মধ্যে আসে রাহুল রাম (যে সব চেয়ে বেশী দল-এর মুখ হিসেবে পরিচিত) ও অমিত কিলাম। ২০০৯ সালে অসীম চক্রবর্ত্তীর মৃত্যুর পর, দলটার এক অপরিহার্য আওয়াজ বন্ধ হয়ে যায়। এবং এখন সুস্মিত সেন চলে যাওয়ার পর দলটা যেরকম গত ২৫ বছর ধরে মানুষেরা চিনত সেরকম আর নেই। ফলে, বলা যেতে পারে দলটা আপাতত একধরনের শেষ।

পুনশ্চ: সুস্মিত সেন ২০১৪-তে একটা বই লিখেছিল যে সে দলটা কেন ছেড়েছিল। বইটা হয়তো একটু এক-তরফা। জনপ্রিয়তা ও একাগ্রতা মেলানো কঠিন। কিন্তু এমন হয়তো নয় যে একটা ঠিক ও অন্যটা ভুল। ২০০৪-এর পর ২০১৫-তে আমি ইণ্ডিয়ান ওশান-কে সরাসরি আরেকবার অনুষ্ঠান করতে দেখলাম। দেখতে ও শুনতে খুবই ভালো লাগলো। জনপ্রিয়তা, গানে আনন্দলাভ করা -- এই বিষয়গুলোয় কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। হয়তো জনপ্রিয়তার খাতিরে কথা-সমেত গান বেশি, কিন্তু এখনো জনপ্রিয় আর এখনও শুনে ও দেখে আনন্দলাভ করি।

Sunday, 9 June 2013

পি.জি. য়ুড্‌হাউস ও টেনিদা

পি.জি. য়ুড্‌হাউস-এর গল্প ২০১৩ সালে সব চেয়ে জনপ্রিয় ভারতীয়দের মধ্যে (এবং হয়তো রুশদের মধ্যে)। পি.জি. য়ুড্‌হাউস-এর গল্প খুব অল্প সংখ্যক ভারতীয়রাই পড়ে (বছরে প্রায় পঞ্চাশ হাজার য়ুড্‌হাউস-এর বই বিক্রি করে পেঙ্গুইন প্রকাশনা), তবে ভারতেই, বিশ্বে য়ুড্‌হাউস-এর বইয়ের সবচেয়ে বেশি বিক্রির স্থান। এই প্রীতির কারণ ইংরেজ সংস্কৃতির প্রতি কোন বিশেষ আকর্ষণ নয়, বরং ইংরিজি ভাষার চমৎকার লেখার প্রতি টান। এর সমতুল্য বাংলা লেখা হিসেবে নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়-এর টেনিদা গল্প মনে আসে। দুজন লেখকের গল্পই বিপুল-অবসর-সময়-বাহক মানুষদের নিয়ে। এবং দুজনের লেখাই বিশেষ কোন সময়ে বাঁধা নয়। দুজনের লেখাতেই রাজনীতির প্রকাশ্য আলোচনা নেই। এবং দুজনের লেখাই অনেকে বারবার পড়ে কারণ প্রত্যেক বারই তা মজার লাগে। পি.জি. য়ুড্‌হাউস, আমার মতে, ইংরিজি ভাষার শ্রেষ্ঠ লেখকদের মধ্যে একজন। ভাষার অসাধারণ ব্যবহারের ফলেই এদের লেখা অনুবাদে পড়া বিশেষ আকর্ষণীয় শোনায় না, যারা এই ভাষা দুটোয়ে পড়তে পারে, তাদের কাছে। পি.জি. য়ুড্‌হাউস-এর কিছু লেখা এখানে পড়া যায়। ব্যক্তিগত ভাবে, আমার সবচেয়ে প্রিয় য়ুড্‌হাউস-এর বই মাঝে মাঝেই বদলাতে থাকে, তবে আপাতত তা হলো The Golf Omnibus