Tuesday, 3 December 2013

বিদ্যুৎ সঞ্চয় ও টাকা সঞ্চয়

বিদ্যুৎ সঞ্চয় ও টাকা সঞ্চয়-এর মধ্যে মাঝ পথ খুঁজতে হলেও LED bulb ও tube ব্যবহার করা বেশি লাভজনক। হিসেবটা এই রকম।

৭ W LED
মিনিটে - ৪২০ W
ঘণ্টায়ে - ২৫২০০ W
দিনে ৫ ঘণ্টা ব্যবহার - ১২৬০০০ W
মাসে ৩০ দিন ব্যবহার - ৩৭৮০০০০ W
বছরে ১২ মাস ব্যবহার - ৪৫৩৬০০০০ W বা ৪৫৩৬০ kW বা ১২.৬ kWh


১৩ W CFL

মিনিটে - ৭৮০ W
ঘণ্টায়ে - ৪৬৮০০ W
দিনে ৫ ঘণ্টা ব্যবহার - ২৩৪০০০ W
মাসে ৩০ দিন ব্যবহার - ৭০২০০০০ W
বছরে ১২ মাস ব্যবহার - ৮৪২৪০০০০ W বা ৮৪২৪০ kW বা ২৩.৪ kWh

অর্থাৎ প্রতি বছরে একটা LEDর একটা CFL-এর চেয়ে ১০.৮ kWh বা unit বাঁচায়। ১ unit বিদ্যুৎ এর দাম প্রায় ৬.১০ টাকা, ফলে বছরে ৬৫.৮৮ টাকা বাঁচে। একটা LEDর দাম একটা CFL এর চেয়ে প্রায় ৩৫০ টাকা বেশি। তাই প্রায় ৫ বছর ৪ মাসে টাকা ফেরত চক্রব্রদ্ধি সুদ বাদ দিলে এবং বিদ্যুৎ এর unit-প্রতি দামের ব্রদ্ধি বাদ দিলে।

Thursday, 28 November 2013

নাটক পর্যালোচনা

আনন্দবাজার পত্রিকাThe Telegraph-এ যে সব নাটক পর্যালোচনা বেরোয়, তাতে
  • মঞ্চ ব্যবহার
  • আলোর ব্যবহার
  • আবহসঙ্গীত ব্যবহার
  • অভিনয়
  • নির্দেশনা
  • সংলাপ
এই মাপকাঠি গুলো নিয়ে আলাদা আলাদা ভাবে আলোচনা হলে ভালো হতো।

Sunday, 17 November 2013

রাহুল দ্রাভিড-এর ব্র্যাডম্যান বক্তৃতা, ১৪ই ডিসেম্বার ২০১১

শচীন তেণ্ডুলকার

ESPNCricinfo থেকে নেওয়া wagon-wheel

শেন ওয়ার্ণ: ‘...at the Sydney Cricket Ground he made 241, his first Test double-century. I was injured at the time so was commentating but I had a great view of his innings from the box.
   He had been dismissed a few times in that series by Australia bowling full and wide. He nicked off to slip and the keeper and went into the Sydney Test on the back of scores of 0, 1, 37, 0 and 44. He decided he would respond by not playing a cover drive. Now the cover drive is a fairly large part of a batsman’s armoury. When bowlers are pitching it up and trying to swing it you tend to play a lot of cover drives, but he did not play a single one in more than 10 hours at the crease.
   It summed up his mental strength. He let go every ball that was pitched up outside off stump. If they dropped short he cut it, or if the bowlers were a fraction full, he would straight drive it. He would block the odd one through the covers for a single but never hit a full-on flourishing cover drive. A truly amazing innings that summed the guy up.’

Friday, 8 November 2013

Art forms in the digital world

    Which art forms are most amenable to the digital format? Performing arts such as dance and drama had never made the leap to any mechanical reproduction, unlike music. Hence dance and drama can be ruled out at the onset. Some forms are more easily ruled out than others. Sculpture for instance. Handicrafts and embroidery also belong to this category.
    Music is a more complicated form. It depends not only on the digital file but also on the hardware. If some form of music requires the music to come from the listener’s right, left, front, back, top and bottom; then one needs speakers able to produce such an effect. The performative visual aspect of music, like dance and drama, never moved successfully to mechanical reproduction. Hence they too are ruled out.
    Narration of stories, or oral literature transformed itself and created a new form when it moved to the realm of the written text. On the other hand, an audio recording of an oral narration is a form which is amenable to mechanical reproduction. Audio plays are examples of how such a format is used to its fullest potential.
    Written literature is quite amenable to the digital world. Though the handiness and quirks of a physical book (think of Laurence Sterne’s Tristram Shandy) is sometimes lost in a digital book, the digital book comes with its own benefits, such as improved searching and annotating abilities.
    Static, immobile, visual art, such as painting, is not very amenable to the digital realm. The tactile textures of the drawn/ painted medium is usually lost in the digital format. Even a three-dimensional rendering does not fully transfer the features of visual art. Think of Van Gogh’s paintings with its raised surfaces of colour, or Byzantine art with inlaid gold work and their textures. In addition to texture, is the issue of size. A digital rendering never transfers the exact impact of the size of a visual artwork. The visual impact of a Raphael canvas several metres in dimension is never fully expressed in the digital world. Even if one were to use a projector which projects digital images of very large proportions and high clarity and focus, the visual impact of size of the physical art work is still not fully transferred onto the digital rendering.
    Cinema is a form which is perhaps very amenable to being transferred into the digital world.
    Photography is an art form which, if it is to be considered an art form, is the result of manipulation of what one would have seen normally. It is by its very nature a distortion. Hence, it is also well-suited to the digital world, and is in fact enhanced by the digital realm.

Sunday, 3 November 2013

কলকাতায় কেনাকাটা

অনেক দোকানে ও ওয়েবসাইটে 'sale' ও 'discount coupon' হয়। আবার অনেক দোকানে এসব হয় না। যেরকম fabindia। ওয়েবসাইটের মধ্যে flipkart-এ 'discount coupon' এর প্রথা নেই যদিও 'sale'এর প্রথা আছে। যেসব দোকানে 'sale' ও 'discount coupon' (এবং একই সুরে স্পর্শনেন্দ্রিয় দোকানে যেখানে দরাদরি হয়), সেই সব দোকানে আমার ব্যক্তিগত ভরসা কম। সব সময়ই মন খুঁতখুঁত করে যে ঠকিয়ে নিল কি না। অন্য সময় কিনলে কি কম দামে পেতাম? আর যেসব দোকানে check-out এর সময় 'discount coupon' আছে কি না জিজ্ঞেস করে, সেই সব সাইটে মনে হয় -- এই তো! এর চেয়েও কম দামে এটা আসলে পাওয়া যায়। আমি ঠকে যাচ্ছি।  jabong, myntra, yebhi -- এই সব সাইট কলকাতার টি.ভি.তে অনেক বিজ্ঞাপন দেয়ে, কিন্তু যদি কোন সামগ্রী শুধুই এই রকম একটা সাইটে পাওয়া যায়, তখন মন অসন্তুষ্ট থেকে যায়। একাধিক সাইটে কোন সামগ্রী পাওয়া গেলে তো একাধিক সাইট তুলনা করে সব চেয়ে কম দাম যেখানে সেখান থেকেই কিনি।

Monday, 14 October 2013

হাইকু ০১১: গ্রাস করে বৃদ্ধি

গ্রাস করে বৃদ্ধি

তারে বৃষ্টির দুই ফোঁটা
দ্রুত, বড়, শেষ

হাইকু ০১০: দূরের একটা ছাদ

দূরের একটা ছাদ

হাওয়ায় দুলছে লাল শাড়ি
অচেনা জীবন

The quality of research is strained

    Teachers, paid-researchers, and wannabe teachers and paid-researchers, need pay rises and employment respectively. In order to gauge who deserves a pay rise, or is the best candidate to be employed, several factors are considered. One of the minor ones is of the quality of their research work.
    However, what determines quality? The answers may be one of the two following points.

1. The number of people whom the work has influenced positively.
2. The new leads that the work has given to people who already know quite a bit about such work. This batch of people is, usually, smaller than the number of people mentioned in the previous point.

Now, how does one measure either the number of people mentioned in point 1, or in point 2?

    Conventional academic practice requires the research work to be made public in some form (part of a journal article or book).
    However, other forms of publication, especially in digital forms such as websites, blogs and posts on social network forums, also exist. Moreover, there are less recognised forms of publication, but performance is also a form of expressing result of a research work. Measuring the quality of a performance has not been attempted so far in academic quantitative measurements. All these less conventional forms of expression of the result of research work are not acknowledged in conventional academic assessment.
    Even if one sticks to conventional methods of publication of academic research work, measuring its quality is still a problematic issue. Standard modes of assessment rely on citations of an existing research publication. However, a lot of research work has a lot of influence or gives new leads but cannot be acknowledged within the formal space of a future publication.
    For instance, a researcher may be heavily influenced by the presentation of an existing research work. That research may not be directly linked to the later publication but the researcher may be trying to emulate or deviate from certain modes of presentation. Such influences are rarely acknowledged, as they seem unconventional. It is a silent form of intertextuality.
    Or, one may not feel the need to cite directly from an earlier publication. This happens when one feels that the point one is making in a future publication is too well-known to be backed up by references to earlier publications.
    Thus, one is left with only direct citations in order to measure the quality of research. The conventional methods of measuring these citations (in some cases only in case of science and social science journals) are as follows.

1. Impact factor – Impact factor refers to journals, rather than to a specific research publication. Wikipedia states that “The impact factor of a journal is the average number of citations received per paper published in that journal during the two preceding years. For example, if a journal has an impact factor of 3 in 2008, then its papers published in 2006 and 2007 received 3 citations each on average in 2008. The 2008 impact factor of a journal would be calculated as follows:

    A = the number of times that articles published in that journal in 2006 and 2007, were cited by articles in indexed journals during 2008.
    B = the total number of “citable items” published by that journal in 2006 and 2007. (“Citable items” are usually articles, reviews, proceedings, or notes; not editorials or letters to the editor.)

    2008 impact factor = A/B.

(Note that 2008 impact factors are actually published in 2009; they cannot be calculated until all of the 2008 publications have been processed by the indexing agency.)”

2. Eigenfactor – Eigenfactor also refers to journals, rather than to a specific research publication. This, as Wikipedia puts it, “is a rating of the total importance of a ... journal. Journals are rated according to the number of incoming citations, with citations from highly ranked journals weighted to make a larger contribution to the eigenfactor than those from poorly ranked journals.” This is similar to the PageRank logic adopted by the founders of Google.

3. h-index – The h-index refers to an individual rather than to a journal or a specific research publication. A researcher has index “h” if “h” of the researcher’s “N” (total) papers have at least “h” citations each, and the other “(N - h)” papers have no more than “h” citations each. Only the most highly cited articles of a researcher contribute to the h-index. If one of these highly cited articles is path-breaking and has changed the way the world thinks about itself, and has more citations than the other highly cited articles, it will not add to the h-index. The h-index value, unlike the impact factor and the Eigenfactor, cannot be a fraction. It has to be a whole number.

4. g-index – The g-index also refers to an individual rather than to a journal or a specific research publication. “Given a set of articles ranked in decreasing order of the number of citations that they received, the g-index is the (unique) largest number such that the top g articles received (together) at least g*g (or g-square) citations.” However, unlike the h-index, the total citations of all the research papers of a researcher, add to the g-index of the researcher. Thus, if one of the researcher’s articles is very  highly cited, it will increase that researcher’s g-index value, even if the researcher’s other articles have not been cited much. The g-index value, like the h-index value, is always a whole number and never a fraction.

    As the Wikipedia articles on these four conventional methods, of measuring the quality of research, state, all of them have their drawbacks, which people have pointed out. Yet, one or more of these assessing methods is used to determine the quality of research in conventional academic practice, not only in the sciences and social sciences, but also in other streams of academics. Humanities research, which often has a validity beyond 3 or 5 years, unlike most scientific research, is also measured using the same parameters.
     Added to this, is the issue of paid publication. Conventional publication is through either books or articles. Whereas books are usually published by established publishers, articles are sometimes published also by small institutes. Most books and articles though are not free. Either the author has to pay to get the material published or the reader has to pay to read such publications. Open-access publications (no author fees, no reader fees) exist in the digital domain but most journals with high subsequent citations avoid this form of open-access model. It is worth pointing out that researchers usually do not make any profit at all from paid-publications. The profit is solely made by the publishing house. Yet, authors continue to publish in these high-citation paid-publications as it gets authors higher credit points in academic assessments. Governments, such as the UK and India, advocate all public research output to be open-access, yet such a policy is not rigorously implemented.

Thursday, 10 October 2013

হাইকু ০০৯: ঠাক্‌ করে লেগে

ঠাক্‌ করে লেগে

ঘাসের মাথা চড় মেরে
ফ্ল্যাট্‌  কভার ড্রাইভ

Sunday, 6 October 2013

হাইকু ০০৮: প্রেমিকদের ঝগড়া

প্রেমিকদের ঝগড়া

ঘন ঘন ফোন দেখা
“আমি-ই করি?”

Friday, 4 October 2013

হাইকু ০০৭: বহু বছর পর

বহু বছর পর

রুক্ষ হাত ও নরম হাত
দুই জীবনস্রোত

আলোয় আলোয় এই আকাশে

সৌরশক্তি ব্যবহার করে সামগ্রী তৈরি করার চল বেশ বহুদিনের হয়ে গেছে। তবুও নানা অর্থনৈতিক কারণে এই প্রযুক্তি খুব বেশি ব্যবহার হয় না। ২০০২ সালে ব্রাজিলের এ্যলফ্রেডো মোসার নামক এক ব্যক্তি এক অভিনব পদ্ধতিতে দিনের বেলা অন্ধকার ঘরে আলো উৎপাদন করার এক উপায় বার করেছিল। এটি বেঁচা হয় না। নিজেকে বানিয়ে নিতে হয়। বাণিজ্যিক ভাবে বেঁচা হওয়া সৌরসামগ্রী অনেক আছে, এবং ভারতবর্ষে তা ব্যবহার করার জন্য সরকার ভর্তুকি ও দেয়ে। কিন্তু বেশ আকর্ষণীয় কিছু সামগ্রীর মধ্যে এ্যমেরিকার লুসিEnergizer কম্পানির Solar Crank light

Saturday, 21 September 2013

বাংলা ভাষায় Scrabble

এই জিনিষটা করা কঠিন, কারণ বাংলায় যুক্তাক্ষর ও স্বরবর্ণ মাত্রার সংখ্যা এতই যে তার সবকটার কিছু কিছু টালি রাখতে হলে, বিশাল আকারের তক্তা লাগবে। Scrabble-এর ধারণাটা ইংরিজি থেকে বাংলায় পরিণত করা যায় না। কোন abugida ভাষাতেই Scrabble বানানো কঠিন।

Friday, 13 September 2013

হাইকু ০০৬: শীতের কলকাতা

শীতের কলকাতা

হারিয়ে যাওয়া আওয়াজ
দূর থেকে, রাত্রে

Sunday, 25 August 2013

হাইকু ০০৫: জন্মদিনের সাজ

জন্মদিনের সাজ

নগ্ন, সাজসজ্জা ছাড়া
প্রেমিকের সামনে

হাইকু ০০৪: সমুদ্রের ঢেউ

সমুদ্রের ঢেউ

এসে, কিল মেরে, ফেরৎ
পা’র উপর চুমু

হাইকু ০০৩: অট্টালিকার হার

অট্টালিকার হার

দেওয়াল, নল, ফেটে বট গাছ
কাঠ ফেঁড়ে পিঁপড়ে

Monday, 1 July 2013

হাইকু ০০২: ক্ষমতা না প্রেম?

ক্ষমতা না প্রেম?

পা’র তলায় চেপে রাখা
গুড়গুড়ে বেড়াল

হাইকু ০০১: অনিশ্চয়তা

অনিশ্চয়তা

Ctrl Z মারতে মারতে
কামরে ফেলা নখ

Sunday, 30 June 2013

ভাঁড়-holder

অনেক গাড়িতেই cup-holder থাকে। কিন্তু তার একটা মাত্র ব্যাসরেখা (diameter) থাকে। অনেক দেশেই মাটির ভাঁড় (রসালো মিষ্টির ভাঁড়, ঝোল-সহ তরকারির ভাঁড়) খুব ব্যবহার করা হয়। এই মাটির ভাঁড় হাতে নিয়ে হাঁটা বিশেষ মুশকিল নয়। কিন্তু গাড়িতে তা নিয়ে যাওয়া যথেষ্ট মুশকিল, সেই ভাঁড় বেঁকে গিয়ে রস/ ঝোল না ফেলে। তাই গাড়িতে, এবং bicycle, scooter ও motorcycle-এও একটা ব্যাসরেখা বদলানো যায় এমন একটা cup-holder এবং তার নীচে উচ্চতা বদলানো যায় এমন একটা ওজন ধরে রাখার, পাত্র-র তলাটা ট্যাঁক দেওয়ার, জিনিষ থাকলে, এই সমস্যার একটা মোটামুটি সমাধান করা যায়।

Wednesday, 19 June 2013

বারাসাতের ধর্ষণ

    বারাসাতের ধর্ষণ-কাণ্ডের পর কিছু মানুষে জবাব খুঁজছে। জবাব যে কিছু মানুষে খুঁজছে এটা ভালো জিনিষ। রাজনৈতিক নেতারা (প্রজাতান্ত্রিক ভাবে মনোনীত প্রতিনিধিরা), যেরকম পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী, এই ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদীদের বিরোধী দলের সদস্য বলেছেন। অনেক প্রতিবাদকারীরা, এই মন্তব্যের পূর্বেই, সমাজে অপরাধ বেড়ে চলার কারণ শাসক দলের ব্যর্থতা হিসেবে চিহ্নিত করেছে।
    আমার ব্যক্তিগত মতে, সমাজের এই অপরাধের কারণ উপর থেকে জনসাধারণের মধ্যে ছড়িয়ে পরছে, তা নয়। বরং বেশীর ভাগ মানুষই অপরাধী -- ধর্ষণকারী, স্লীলতাহাণীকারী, ঘুষখোর, ইত্যাদি। এবং আমাদের রাজনৈতিক প্রতিনিধিরা সেই সমাজ এর থেকেই মনোনীত হয়েছে, ফলে তারা সেই সব ইচ্ছারই প্রতীক।
    রাজনৈতিক নেতাদের দোষ না দিয়ে সমাজের নিজেদেরকে দোষ দেওয়া উচিত। এক অতি সৎ ব্যক্তি মুখ্যমন্ত্রী হলেও, সে সমাজের উন্নতি করতে অক্ষম হবে যদি সাধারণ মানুষ অপরাধী হয়, যেটা বেশীর ভাগ সাধারণ মানুষই।
    তবে, রাজনৈতিক নেতাদের একটা দায়িত্ব নিশ্চই আছে। এবং আমাদের বর্তমান নেতারা নিজেদের দায়িত্ব ঠিক মতন পালন করতে পারেনি বলে সাধারণ মানুষের তাদের আগামী নির্বাচনে আরেকবার মনোনয়ন করা উচিত নয়। কিন্তু মানুষ কী চায়, তা আগামী নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশিত না হওয়া পর্যন্ত জানা যাবে না। এটা বলাও বৃথা যে নির্বাচনে জালিয়াতি হয়। সেই অপরাধেও অংশগ্রহণ করে সাধারণ মানুষ। এবং তাদের যথেষ্ট সম্মতি না থাকলে, এই জালিয়াতি করাও সম্ভব নয়।
    সমাজ হিসেবে, কেবল পশ্চিমবঙ্গ বা ভারত-ই নয়, সমস্ত পৃথিবীতেই অপরাধের পিছনের কারণ এই যে বেশীর ভাগ মানুষই অপরাধী। লেখা বাহুল্য, এই সব মত-ই ব্যক্তিগত, এবং তা সত্য হিসেবে প্রচার করা আমার উদ্দেশ্য নয়।

Friday, 14 June 2013

ইণ্ডিয়ান ওশান

দিল্লির ইণ্ডিয়ান ওশান গানের দল আপাতত দলভঙ্গ হয়েছে। ওরা প্রথমে শুরু হয়েছিল স্রেফ অসীম চক্রবর্ত্তী-র তবলা ও সুস্মিত সেন-এর গীটার নিয়ে। ওদের প্রথম অনুষ্ঠানই ছিল একটি কলেজে। তারপর থেকে প্রায় ২৫ বছর ধরে ওরা প্রধানত ভারতের কলেজেই বাজিয়ে গেছে। তারপর ওদের মধ্যে আসে রাহুল রাম (যে সব চেয়ে বেশী দল-এর মুখ হিসেবে পরিচিত) ও অমিত কিলাম। ২০০৯ সালে অসীম চক্রবর্ত্তীর মৃত্যুর পর, দলটার এক অপরিহার্য আওয়াজ বন্ধ হয়ে যায়। এবং এখন সুস্মিত সেন চলে যাওয়ার পর দলটা যেরকম গত ২৫ বছর ধরে মানুষেরা চিনত সেরকম আর নেই। ফলে, বলা যেতে পারে দলটা আপাতত একধরনের শেষ।

পুনশ্চ: সুস্মিত সেন ২০১৪-তে একটা বই লিখেছিল যে সে দলটা কেন ছেড়েছিল। বইটা হয়তো একটু এক-তরফা। জনপ্রিয়তা ও একাগ্রতা মেলানো কঠিন। কিন্তু এমন হয়তো নয় যে একটা ঠিক ও অন্যটা ভুল। ২০০৪-এর পর ২০১৫-তে আমি ইণ্ডিয়ান ওশান-কে সরাসরি আরেকবার অনুষ্ঠান করতে দেখলাম। দেখতে ও শুনতে খুবই ভালো লাগলো। জনপ্রিয়তা, গানে আনন্দলাভ করা -- এই বিষয়গুলোয় কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। হয়তো জনপ্রিয়তার খাতিরে কথা-সমেত গান বেশি, কিন্তু এখনো জনপ্রিয় আর এখনও শুনে ও দেখে আনন্দলাভ করি।

Sunday, 9 June 2013

পি.জি. য়ুড্‌হাউস ও টেনিদা

পি.জি. য়ুড্‌হাউস-এর গল্প ২০১৩ সালে সব চেয়ে জনপ্রিয় ভারতীয়দের মধ্যে (এবং হয়তো রুশদের মধ্যে)। পি.জি. য়ুড্‌হাউস-এর গল্প খুব অল্প সংখ্যক ভারতীয়রাই পড়ে (বছরে প্রায় পঞ্চাশ হাজার য়ুড্‌হাউস-এর বই বিক্রি করে পেঙ্গুইন প্রকাশনা), তবে ভারতেই, বিশ্বে য়ুড্‌হাউস-এর বইয়ের সবচেয়ে বেশি বিক্রির স্থান। এই প্রীতির কারণ ইংরেজ সংস্কৃতির প্রতি কোন বিশেষ আকর্ষণ নয়, বরং ইংরিজি ভাষার চমৎকার লেখার প্রতি টান। এর সমতুল্য বাংলা লেখা হিসেবে নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়-এর টেনিদা গল্প মনে আসে। দুজন লেখকের গল্পই বিপুল-অবসর-সময়-বাহক মানুষদের নিয়ে। এবং দুজনের লেখাই বিশেষ কোন সময়ে বাঁধা নয়। দুজনের লেখাতেই রাজনীতির প্রকাশ্য আলোচনা নেই। এবং দুজনের লেখাই অনেকে বারবার পড়ে কারণ প্রত্যেক বারই তা মজার লাগে। পি.জি. য়ুড্‌হাউস, আমার মতে, ইংরিজি ভাষার শ্রেষ্ঠ লেখকদের মধ্যে একজন। ভাষার অসাধারণ ব্যবহারের ফলেই এদের লেখা অনুবাদে পড়া বিশেষ আকর্ষণীয় শোনায় না, যারা এই ভাষা দুটোয়ে পড়তে পারে, তাদের কাছে। পি.জি. য়ুড্‌হাউস-এর কিছু লেখা এখানে পড়া যায়। ব্যক্তিগত ভাবে, আমার সবচেয়ে প্রিয় য়ুড্‌হাউস-এর বই মাঝে মাঝেই বদলাতে থাকে, তবে আপাতত তা হলো The Golf Omnibus

Wednesday, 22 May 2013

হিমসাগর

পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটা জিনিষ বিশ্বমানের। তার মধ্যে একটা জিনিষ হল হিমসাগর আম। এই আম পশ্চিমবঙ্গের বাইরে খুব একটা পাওয়া যায় না। ভারতের অন্যান্য রাজ্যেই হিমসাগর পাওয়া মুশকিল। ভারতের বাইরে এ্যললফনসো আম-ই অন্য দেশে বেশি রপ্তানি করা হয়, ফলে ভারতের বাইরেও হিমসাগর আমের নাম অল্প মানুষেই শুনেছে।

Friday, 10 May 2013

দা বিটেল্‌স, কলকাতার গ্রীষ্মে দার্জিলিং-এর প্রতি মানসিক টান, ও রিভলভার হোটেল

    দা বিটেল্‌স-এর গান অনেক কলকাতাবাসীরাই শুনেছে, কারণ ইংরেজদের থেকে স্বাধীনতার ২০ বছর পর-ও ইংরেজী প্রভাব বেশ খানিকটা ছিল কলকাতায়। এখন সেই প্রভাব অনেকটা কমে এসে থাকলেও এখনও কয়েকজন শোনে দা বিটেল্‌স-এর গান। এমন নয় যে তাদের এই গান শোনার কারণ ইংরেজ সংস্কৃতির প্রতি কোন বিশেষ আকর্ষণ। বরং কোন সূত্রে একবার সেই গান শুনে তা ভালো লাগলে, গানটাকে গান হিসেবে পছন্দ করা বা না করা এবং আরো শোনা বা না শোনার উপর তা নির্ভরশীল।
    দা বিটেল্‌স-এর গান সঙ্গীত হিসেবে জটিল। এ.আর. রেহেমান-এর গানের মত অতটা জটিল না হলেও ১৯৬০-এর দশকের রক-অ্যাণ্ড-রোল ব্যাণ্ডের গান হিসেবে বেশ জটিল। সেই জটিলতাই হয়তো গানগুলোর জনপ্রিয়তা কিছুটা বাঁচিয়ে রাখতে পেরেছে এত বছর পর-ও। Nostalgia-র কারণটা হয়তো অল্পই।
    দা বিটেল্‌স-এর উপর ভিত্তি করে দার্জিলিং-এ ২০১০ সালে ভিকাশ ও আসেনলা প্রধাণ ‘রিভলভার’ নামক একটা হোটেল চালু করেছিল।
    কলকাতার বৈশাখ মাসের গ্রীষ্মে রিভলভার হোটেল এ গিয়ে দা বিটেল্‌স-এর গান শুনতে ইচ্ছে হয় মাঝে মাঝে।


Sunday, 7 April 2013

রবীন্দ্রনাথের উপর তথ্য

  • রবীন্দ্রনাথের প্রথম প্রকাশ করা রচনা ‘অভিলাষ (দ্বাদশ বর্ষীয় বালকের রচিত)’ নামক একটা কবিতা, যেটা প্রকাশিত হয় ব্রাহ্মসমাজের মুখপত্র তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা-তে অগ্রহায়ণ, ১২৮১-তে।
  • রবীন্দ্রনাথের প্রথম প্রকাশিত প্রবন্ধ তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা-তে পৌষ, ১২৮১-তে প্রকাশিত হওয়া ‘গ্রহগণ জীবের আবাসভূমি’।
  • প্রথম প্রকাশিত ছোট গল্প ‘ভিখারিনী’ যা প্রকাশিত হয় ভারতী পত্রিকায় দুই কিস্তিতে শ্রাবণ ও ভাদ্র, ১২৮৪-এ।
  • প্রথম প্রকাশিত উপন্যাস বউ-ঠাকুরানীর হাট যা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় ভারতী পত্রিকায় কার্তিক, ১২৮৮ থেকে আশ্বিন, ১২৮৯ পর্যন্ত।
  • প্রথম প্রকাশিত নাটক বলতে ভগ্নহৃদয় নাটকের প্রথম ছয়টা সর্গ মুদ্রিত হয় ভারতী পত্রিকায় কার্তিক-ফাল্গুন, ১২৮৭-এ। এর পরে, আদি ব্রাহ্মসমাজ যন্ত্র ১২৮৭-এ বাল্মিকী-প্রতিভা প্রকাশ করে।

  • রবীন্দ্রনাথের জীবিতাবস্থায় শেষ প্রকাশিত রচনা একটা কবিতা, যার প্রথম ছত্র ‘আমার এ জন্মদিন-মাঝে আমি হারা’ এবং যা প্রকাশিত হয় প্রবাসী পত্রিকায় শ্রাবণ, ১৩৪৮-এ। রবীন্দ্রনাথের মৃত্যুর পর, আনন্দবাজার পত্রিকা ২৪ শ্রাবণ, ১৩৪৮-এ ‘রবীন্দ্রনাথের সর্বশেষ কবিতা’ নামে একটা কবিতা প্রকাশ করে যার প্রথম ছত্র ‘দুঃখের আঁধার রাত্রি বারে বারে’। ভাদ্র, ১৩৪৮-এ বঙ্গলক্ষ্মী পত্রিকা একটা রবীন্দ্র-স্মরণ সংখ্যা প্রকাশ করে এবং তাতে ‘রবীন্দ্রনাথের শেষ রচনা ১’ নামে প্রকাশিত হয় ‘দুঃখের আঁধার রাত্রি বারে বারে’ ও ‘রবীন্দ্রনাথের শেষ রচনা ২’ নামে প্রকাশিত হয় একটা কবিতা যার প্রথম ছত্র ‘তোমার সৃষ্টির পথ রেখেছ আকীর্ণ করি’।
  • রবীন্দ্রনাথের জীবিতাবস্থায় শেষ প্রকাশিত নাটক হয় মুক্তির উপায় যা প্রকাশিত হয়েছিল অলকা পত্রিকায় আশ্বিন, ১৩৪৫-এ অথবা স্বর্গে চক্রটেবিল বৈঠক যা প্রকাশিত হয়েছিল প্রবাসী পত্রিকায় আশ্বিন, ১৩৪৫-এ।
  • রবীন্দ্রনাথের জীবিতাবস্থায় শেষ প্রকাশিত গল্প ‘বদনাম’ যা প্রকাশিত হয় প্রবাসী পত্রিকায় আষাঢ়, ১৩৪৮-এ।
  • রবীন্দ্রনাথের শেষ প্রকাশিত উপন্যাস মালঞ্চ যা যা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় বিচিত্রা পত্রিকায় আশ্বিন থেকে অগ্রহায়ণ, ১৩৪০ পর্যন্ত।
  • রবীন্দ্রনাথের জীবিতাবস্থায় শেষ প্রকাশিত প্রবন্ধ তিনটে --ক) ‘সত্য ও বাস্তব’ যা ‘সাহিত্য, শিল্প’ নামে প্রবাসী পত্রিকায় আষাঢ়, ১৩৪৮-এ প্রকাশিত হয়েছিল। খ) একই সংখ্যায় ‘সাহিত্য, গান, ছবি’ নামক আরেকটা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছিল।কবিতা পত্রিকা আষাঢ়, ১৩৪৮-এ একটা বিশেষ রবীন্দ্র সংখ্যা প্রকাশ করে যাতে দুটো প্রবন্ধ ছিল -- গ) ‘সাহিত্যবিচার’ ও ‘সাহিত্যের মূল্য’। এর মধ্যে ‘সাহিত্যের মূল্য’ প্রবন্ধটি আগেই জ্যৈষ্ঠ, ১৩৪৮-এ প্রবাসী পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল।

  • রবীন্দ্রনাথ প্রোটন, ইলেক্ ট্রন ও ন্যুট্রন নিয়ে দুটো প্রবন্ধ -- ‘পরমাণুলোক’ ও ‘নক্ষত্রলোক’ -- এবং একটা কবিতা -- ‘মিলের কাব্য’ -- রচনা করেছিল।

Wednesday, 27 March 2013

Monday, 25 March 2013

কলকাতা বই মেলায় হারিয়ে না যাওয়া

Publishers & Booksellers Guild-এর থেকে প্রত্যেক বছর একটি নকশা জোগার করে, সেটা অনুযায়ী একটা মোবাইল ফোন অ্যাপ্লিকেশান (অ্যাপ) এ নকশা বানিয়ে, তাতে যে কোন স্টল এর নাম লিখলে, তার নম্বর দেখিয়ে দেওয়া অথবা যে কোন নম্বর এর স্টলে কী দোকান আছে, এবং তৃতীয়ত, একটি স্টল নম্বর এর থেকে আরেকটি স্টল নম্বর এ যাওয়ার দ্রুততম রাস্তা দেখিয়ে দেওয়ার একটি অ্যাপ্লিকেশান বানিয়ে, তা বিনামূল্যে ব্যবহার করতে দিলে, তার অনেক ব্যবহারকারী থাকতো।

পুনশ্চ: ২০১৫ থেকে এমনই একটা Android অ্যাপ Publishers & Booksellers Guild বানিয়েছে CESC'র সহযোগিতায়।

কলকাতার জন্য ট্রেনের মোবাইল ফোন অ্যাপ্লিকেশান

কলকাতার মেট্রো ও লোকাল ট্রেন এর নকশা কয়েকটা আছে, কিন্তু আজকালকার চলতি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশান (অ্যাপ) সেরকম নেই। নীচের নকশার চেয়েও ভালো ভাবে পেশ করে একটা মোবাইল অ্যাপ্লিকেশান বানালে, তা বিনামূল্যে ব্যবহার করতে দিলে, মানুষ তা নিশ্চই ব্যবহার করবে। ট্রেন ব্যবহারকারীর ১ শতাংশ হয়তো এটি ব্যবহার করবে, কিন্তু ১ শতাংশটাও একটা বড় সংখ্যা।

Changing notions of objects

Section 1
    When it comes to physical books, whereas Dublin core metadata principles categorise them under the following 15 basic heads --

  • Title
  • Creator
  • Subject
  • Description
  • Publisher
  • Contributor
  • Date
  • Type
  • Format
  • Identifier
  • Source
  • Language
  • Relation
  • Coverage
  • Rights

and usual library practices categorise them under heads like --

  • Title
  • Creator
  • Subject
  • Publisher
  • Place of publication
  • Date
  • Language
  • Number of pages
  • Classification number


when it comes to more non-technical methods of categorising books, one uses heads like

  • Title
  • Creator
  • Subject
  • Publisher
  • Colour of cover
  • Format of cover (hardback/ paperback)
  • Dimensions (not exact, but adjectives such as big, small, slim, voluminous)
  • Position in stack (beside this object, above this object, etc.)
  • Donor

    From the above hypothesis, it may be concluded that in non-technical methods, the memory of objects is sometimes more important than or as equally important as the specific technical identifiers. When one thinks about digital objects, rather than physical objects, non-technical methods categorise objects under heads like

  • File or Folder
  • File or folder name
  • Subject
  • Storage media (e.g. red pen drive in black bag lying on 3rd shelf of the cupboard)
  • Path in storage media (e.g. one out of the 3 folders in the folder whose shortcut lies in the top right corner of the desktop screen)
  • Type of file (e.g. pdf, jpg)
  • Last modified time

    According to this hypothesis about digital objects, one can say that memory, again, plays an important part in organising and locating objects. Inexact identifiers are privileged over specific, more-technical identifiers. Thus, whereas some sensory identifiers (such as colour of object) are lost in this transition from the physical realm to the digital realm, some sensory identifiers (such as path in storage media) gain more prominence than position on stack in case of physical objects.

Section 2
    In addition to categorising and locating objects, objects also occupy a sentimental role in the lives of their possessors. I am suggesting that whereas it is easier to develop an emotional attachment to physical, tangible objects, it is perhaps less easier to develop an emotional attachment to digital objects. With physical objects, emotional attachment may be due to

a) the contents inside that object – feelings evoked by text or images inside a book, or sound produced by a gramophone record, cassette or CD, or
b) it may be due to feelings evoked by associations of the object – memory of the donor, occasion on which the object was received, circumstances under which the object was received, or
c) the object itself – an object which appeals to the aesthetic senses

With digital objects, emotional attachment, if any, is due to points (a) and sometimes (b) but rarely ever (c). This may be due to the simple fact, that a digital object is not a tangible object and thus its existence as an object in the first place is slightly dicey.
    The loss of attachment to an object because of the object itself is some thing, that I am suggesting, which occurs when one moves from the realm of physical objects to digital objects.

কম্পিউটারে বাংলা হরফ

কম্পিউটার আসার পর নানা আর্থিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কারণে বাংলা হরফের সংখ্যা কমে এসেছে। এই হরফগুলো ছাড়া বিনামূল্যে বাংলা হরফ পাওয়া মুশকিল। বাংলা বিজ্ঞাপন সংস্থারা কয়েকটি সৌখিন হরফ ব্যবহার করে, কিন্তু তা বিনামূল্যে সাধারণ ভাবে পাওয়া যায় না। কম্পিউটার আসার আগে বিজ্ঞাপন হয় ছাপা অথবা হাতে লেখা হত। তার কিছু নমুনা এখানে দেখা যায়। পশ্চিমবাংলা ও বাংলাদেশের আর্থিক অবস্থা ভালো হলে, শিল্পীদের কম্পিউটার ব্যবহার করার আরো সুযোগ হবে এবং তখন রকমারি বাংলা হরফ ও দেখা যাবে। আপাতত কম্পিউটারে বাংলা হরফ বানানোর কাজ অল্প কিছু মানুষদের মধ্যেই সীমিত আছে। সেই ব্যাপারে কিছু তথ্য এখান থেকে জানা যেতে পারে।

বাংলা Unicode হরফের মধ্যে Mukti Narrow হরফটা আমার বিশেষ পছন্দ।

Sunday, 24 March 2013

ফেডোরা টুপি

ফেডোরা টুপি আগে আমেরিকান যুক্তরাষ্ট্রে মহিলারা পড়তো। ক্রমে পুরুষেরা তা পড়তে শুরু করে। হাম্ফ্রি বোগার্ট ক্যাসাব্ল্যাঙ্কা চলচ্চিত্রে এই টুপিটি পড়ে। ফ্র্যাঙ্ক সিনাট্রা এই টুপিটি পড়তো এবং এখন লেণার্ড কোহেন-ও এই টুপিটি পড়ে। সম্প্রতি দার্জিলিং এর নেতা, বিমল গুরুঙ-কেও দেখা গেছে এই টুপি পড়ে থাকতে।